রাজনীতি হউক কেবল মাত্র দেশ ও জাতির জন্য

PIN

আমাদের দেশটার প্রায় সকল রাজনৈতিক নেতা-কর্মীগণ সর্বদাই বুলি আউড়ান যে, তারা জনগণের জন্য রাজনীতি করছেন, দেশের জন্য সবকিছূ বিলিয়ে দিচ্ছেন। আর এমন ভাব দেখান যে, জনগণের জন্য তারা এতোই ব্যস্ত রয়েছেন যে, তাদের দম ফেলার সময়টুকো নেই। কিন্তু বাস্তবে তাদের রাজনীতি কি আসলেই জনগণের কল্যাণে পরিচালিত হচ্ছে? যে সকল বিষয় নিয়ে কাজ করলে বাস্তবিক অর্থে জনগণের উন্নয়ণ ও সমৃদ্ধি ঘটবে, সে সকল বিষয়ে তাদের রাজনৈতিক এবং অরাজনৈতিক কর্মকান্ড কতটুকু পরিচালিত হয়, সে সকল বিষয় নিয়ে বিচার-বিশ্লেষণ করলে আমরা তেমন কোন সুখকর রিপোর্ট পাবো বলে আমার মনে হয় না। আমি এ বিষয়ে তেমন কোন মন্তব্যও করতে চাই না।তবুও দু’একটা কথা একেবারেই না বললেই নয়…

ছাত্ররা এদেশে প্রায় সময়েই রাজনৈতিক দাবার গুটিতে পরিণত হয়েছে। তারা আজ রাজনৈতিক অপব্যবহারের মোক্ষম শিকার। দেশে যাতে সুস্থ ছাত্র নেতৃত্ব বের হয়ে আসতে না পারে সে জন্য চক্রান্তের শেষ নেই। আর এটা বুঝানোর জন্য কোন উদাহরণের প্রয়োজন আছে বলে আমি মনে করি না। কারণ, আমরা আমাদের বর্তমান ও সাবেক সরকারী দলগুলোর ছাত্র সংগঠন সম্পর্কে আমাদের সকলেরই কম-বেশি ধারনা হয়েছে। এমন অবস্থাকে আমি বাংলাদেশের রাজনীতির অশনি সংকেত হিসেবেই দেখছি। এ হচ্ছে আমাদের দেশের চলমান চেতনা ও প্রগতিশীল বলে কথিত রাজনীতির নোংরা ফলাফল। আর অন্যদিকে যে সকল ছাত্র আদর্শিক রাজনীতির চর্চা করতে চায়, তাদেরকে বিলীন করে দেয়ার জন্য রয়েছে ক্ষমতাসীন অশুভ শক্তির তৎপরতা। কোন দেশপ্রেমিক মানুষ এ অবস্থাকে মেনে নিতে পারে না।

রাজনৈতিক ক্ষেত্রে দেশের ওলামায়েকেরামগণ সকলাংশেই অবহেলার শিকার। দেশে প্রায় তিন লক্ষের উপরে মসজিদ ও লক্ষাধিক মাদ্রাসা রয়েছে। সে সব মসজিদ ও মাদ্রাসায় রয়েছেন লক্ষ লক্ষ ওলামায়েকেরাম ও তালিবুল ইলম।দেশের এই বিশালসংখ্যক জনগোষ্ঠীকে দেশ গড়ার কাজে সম্পৃক্ত করতে পারলে দেশের অবস্থা পরিবর্তনের আরও একটি ধারার সূচনা হত বলে আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি। তাই আমি মনে করি আগামীতে যে সকল রাজনৈতিক দল ক্ষমতায় বসবেন তাদের উচিৎ হবে ওলামায়েকেরামদের বিষয়টি গুরুত্বের সাথে গ্রহণ করা।

যাদের জন্য আমরা একটি নিজস্ব মানচিত্র পেয়েছি, সেই ৭১-এর মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে রাজনীতির যেমন কোন অন্ত নেই, ঠিক তেমনি মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যেও অনৈক্যের শেষ নেই। অপরাজনীতির ফলে তারা আজ বহুধা বিভক্ত। এমনকি ক্ষেত্র বিশেষে তারা নিজেরাই দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ছেন। আজ তারা যদি ঐক্যবদ্ধ থাকতেন গোটা জাতি তাদেরকে মূল্যায়ন করত। ফলশ্রুতিতে লাভবান হত দেশ- দেশের মানুষ।

আমাদের দেশের আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর ব্যাপারে পক্ষে-বিপক্ষে অনেক কথাই আমরা বলি এবং শুনতে পাই। বিশেষ করে তাদের সাম্প্রতিক ভূমিকা বহুলাংশেই বিতর্কিত। কিন্তু প্রকৃত কথা হলো যারাই সরকারে আসে তারাই এদেরকে অপব্যবহার করে। কিন্তু তাদের পেশাগত স্বচ্ছতা নিয়ে কেউ কথা বলে না। আমরা একান্তভাবে কামনা করি ভবিষ্যতের সরকারগুলো আইন-শৃংখলা বাহিনীর স্বচ্ছতা ও কার্যকারিতা নিয়ে গঠনমূলক চিন্তা-ভাবনা করবেন।

দেশের লাখ লাখ বেকার-যুবক আজ যেন নিতান্তই অসহায়। তারা এতদিনে বুঝে গেছে যে, ঘরে ঘরে চাকরি দেয়ার কথা কেবলই প্রতারণা ছাড়া আর কিছুই নয়। উপরন্তু ঘরে ঘরে চাকরি খোয়াচ্ছে মানুষ। সৌদী আরবসহ বিভিন্ন দেশে জনশক্তি রফতানী থমকে গিয়েছে। বেকার-যুবকদেরকে কোন কাজ দিতে না পারলে, তাদেরকে প্রতিষ্ঠিত করতে না পারলে তারা সমাজের শক্তি না হয়ে বোঝা হয়ে দাঁড়াবে। এমনকি বিপথগামী হয়ে পড়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে। যার বিরূপ প্রভাবে গোটা দেশ ছেয়ে যাবে। কিন্তু আশ্চর্যজনক হলেও সত্য যে, আমাদের সরকারগুলোর এ ব্যাপারে যেন কোন মাথা ব্যথাই নেই।

দেশের ভাসমান মানুষদের কথা কারো মনে পড়ে না। স্বাধীনতার পরে ৪৭ বছর অতিবাহিত হলেও দেশব্যাপী ভাসমান মানুষের সংখ্যা একেবারে কম নয়। রাজনীতিবিদগণ মুখে অনেক বড় বড় কথা বলেন, এই করবো সেই করবো। কিন্তু ক্ষমতায় বসার পরে এ সকল অসহায় মানুষের কথা তারা একটুও ভাবেন না। এরা কি খোলা আকাশের নীচে আজীবন দিন কাটাবে? এদের জন্য কি দেশের বিভিন্ন স্থানে গুচ্ছগ্রামের ব্যবস্থা করা যায় না? যদি লক্ষ্য লক্ষ রোহিঙ্গাদের জন্য এতোকিছু করতে পারেন, তাহলে নিজের দেশের এই ভাসমান মানুষগুলোর জন্য কি কিছুই করা যায় না? নাকি মিডিয়া যেদিকে ক্যামেরা ধরে সেদিকে পোজ দিতেই বেশি ভালো লাগে? এদের জন্য কিছু করতে পারাই হবে সত্যিকারের রাজনীতি।

সবশেষে বলব রাজনীতিবিদদের দায়িত্ব-কর্তব্য অনেক বেশী থাকে।তাদের প্রতি জনগণের অনেক আশা আকাংখা থাকে। তারা যদি উপরোক্ত বিষয়াবলী উপলব্ধি করতে সক্ষম হন এবং সে অনুসারে কাজ করতে পারেন তাহলে নিশ্চই কোন একদিন এদেশের উন্নতি বিধান সম্ভবপর হবে। বেলাশেষে আমরা এই প্রত্যাশায় রইলাম যে, রাজনীতি হোক কেবল জনগণের জন্য, সর্বস্তরের মানুষের জন্য, গরীব-দুঃখী-মেহনতী জনতার জন্য।

ওয়াহিদ তুষার
প্রচার সম্পাদক, জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক যুব আন্দোলন

এপনি অন্যান্য লিখা গুলোও পড়তে পারেন
প্ল্যান-বি এবং মাহি বি চৌধুরি সমাচার

Leave Your Comments